মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকে সংবাদ সম্মেলন

1488869264

টিবিটি অর্থ ও বানিজ্য: বাংলাদেশ ব্যাংকের পেমেন্ট সিস্টেমস ডিপার্টমেন্টের উদ্যোগে গতকাল সোমবার প্রেস ব্রিফিংয়ের আয়োজন করা হয়। আয়োজিত ব্রিফিংয়ে উপস্থিত সাংবাদিকদের কাছে মোবাইল ফিনান্সিয়াল সার্ভিসেস নিয়ে কথা বলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর জনাব এস. এম. মনিরুজ্জামান, নির্বাহী পরিচালক ও ব্যাংকের মুখপাত্র জনাব শুভঙ্কর সাহা এবং পেমেন্ট সিস্টেমস ডিপার্টমেন্টের মহাব্যবস্থাপক জনাব লীলা রশিদ।ব্রিফিংয়ে বলা হয়, বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, আইন প্রয়োগকারী সংস্থা এবং পত্র পত্রিকায় মোবাইল ফিনান্সিয়াল সার্ভিসেসের অনিয়ম সংক্রান্ত বিষয়ে বিভিন্ন সময়ে প্রকাশিত প্রতিবেদন বাংলাদেশ ব্যাংক অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে গ্রহণ করেছে।

সুশৃঙ্খল ব্যবহার নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বিগত ১১ জানুয়ারি, ২০১৭ তারিখে এ সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করা হয়। সার্কুলার জারির পর থেকে বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় কিছু প্রতিবেদন প্রকাশিত হয় যাতে ধারণা করা যায় যে সার্কুলারে বর্ণিত গ্রাহকের মোবাইল হিসাবে ক্যাশ ইন (নগদ জমা) এবং ক্যাশ আউট (নগদ উত্তোলন) সংক্রান্ত বিষয়ে বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়েছে।জানানো হয়, সার্কুলারের মাধ্যমে গ্রাহকের মোবাইল হিসাবে ক্যাশ ইন এবং ক্যাশ আউটের সীমা হ্রাসপূর্বক পূনর্নিধারণ করা হয়েছে । সার্কুলারের জারির প্রেক্ষিতে একজন গ্রাহক তার মোবাইল হিসাবে অনধিক ২ বারে সর্বোচ্চ ১৫ হাজার টাকা ক্যাশ ইন এবং ১০ হাজার টাকা ক্যাশ আউট করতে পারবেন।

 এভাবে মাসে তিনি তার মোবাইল হিসাবে ২০ বারে ১ লাখ টাকা পর্যন্ত ক্যাশ ইন এবং ১০ বারে ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত ক্যাশ আউট করতে পারবেন । তবে একটি মোবাইল হিসাবে হিসাবধারী কর্তৃক ক্যাশ ইন হওয়ার পর সে হিসাব থেকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ৫ হাজার টাকার বেশী ক্যাশ আউট করা যাবে না । এ নির্দেশনা শুধুমাত্র মোবাইল হিসাবে ক্যাশ ইন হলেই প্রযোজ্য হবে।জমাকৃত অর্থ অন্যান্য সেবা গ্রহণ যেমন পি২পি ট্রান্সফার, ইউটিলিটি বিল পেমেন্ট, মার্চেন্ট পেমেন্ট ইত্যাদি ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে না। আবার কোন গ্রাহক যদি পি২পি ট্রান্সফারের মাধ্যমে তার মোবাইল হিসাবে অর্থ পেয়ে থাকেন সে ক্ষেত্রেও এ নির্দেশনা প্রযোজ্য হবে না ।


*

*

Top