মানিক মিয়া এভিনিউয়ে ‘বিশ্বকাপ জয়ের’ আনন্দ

Capture

টিবিটি স্পোর্টস ডেস্ক: অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড বিশ্বকাপে বাংলাদেশ কোয়ার্টার ফাইনালে ওঠায় দেশে ফিরে বাংলাদেশ দলের কয়েকজন ক্রিকেটার নিজ জেলায় সংবর্ধনা পেয়েছেন। আজ শনিবার পুরো দলকে একসাথে সংবর্ধনা দিচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। বেলা আড়াইটায় রাজধানীর মানিক মিয়া অ্যাভিনিউতে ব্যান্ডসংগীতের মাধ্যমে শুরু হয়েছে সংবর্ধনা অনুষ্ঠান। টাইগারদের নিয়ে মেতে উঠেছে ক্রিকেট অনুরাগীরা, যেন বাংলাদেশ বিশ্বকাপ জয় করেই ফিরেছে।
বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে ক্রিকেটাররা দলের গাড়িতে করে মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়াম থেকে অনুষ্ঠানস্থলে উপস্থিত হন। ফুল দিয়ে তাঁদের বরণ করে নেন আবাহনী ক্লাবের সভাপতি ও দেশের শীর্ষস্থানীয় ব্যবসায়ী সালমান এফ রহমান।
বিসিবি সূত্রে জানা গেছে, একে একে মঞ্চে উঠবেন বিশ্বকাপের স্বপ্ন-সারথীরা। সবার আগে মঞ্চে উঠবেন পেসার শফিউল ইসলাম। সবার শেষে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা।
তবে আজকের সংবর্ধনায় থাকতে পারছেন না বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। তিনি আইপিএল খেলতে ভারতে গেছেন।
এরই মধ্যে প্রজেক্টরের মাধ্যমে দেখানো হচ্ছে বিশ্বকাপে সাফল্যের চিত্রগুলো। রুবেলের সেই দুর্দান্ত বোলিং অ্যাকশন এবং মাহমুদউল্লাহর সেঞ্চুরি দুটি বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে দেখানো হচ্ছে।
মঞ্চে উঠে ক্রিকেটাররা নিজেদের অনুভূতি প্রকাশ করবেন জনতার উদ্দেশে। শুভেচ্ছা বক্তব্যও রাখবেন তাঁরা। এরই মধ্যে অনুষ্ঠানস্থলে এসেছেন বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি ও সাবেক তারকা ফুটবলার কাজী সালাহউদ্দিন ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক। মঞ্চে উঠেছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। এ ছাড়া শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাবের সভাপতি মঞ্জুর কাদের এবং বিসিবির মিডিয়া-প্রধান জালাল ইউনুস। অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বীরেন শিকদার এবং ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফ খান জয়ের থাকার কথা। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখবেন তাঁরা।
অনুষ্ঠানে সুরের মূর্ছনায় দর্শকদের মাতাচ্ছেন মাইলস, ওয়ারফেজ, অর্থহীনসহ কয়েকটি ব্যান্ড। সন্ধায় আতশবাজির ঝলকানিতে শেষ হবে সংবর্ধনা অনুষ্ঠান।
শুক্রবার চট্টগ্রাম জেলা ক্রীড়া সংস্থার পক্ষ থেকে চট্টগ্রামের এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে মাশরাফিদের সংবর্ধনা দেওয়ার কথা ছিল। তবে সিটি করপোরেশন নির্বাচনের পরিবেশে বিঘ্ন ঘটার আশঙ্কায় এই অনুষ্ঠান স্থগিত করার নির্দেশ দিয়েছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা আবদুল বাতেন।
এর আগে সৌম্য সরকারকে সাতক্ষীরায়, মুশফিকুর রহিমকে বগুড়ায়, মাশরাফি বিন মুর্তজাকে নড়াইলে ও মাহমুদউল্লাহকে ময়মনসিংহে সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে।
সর্বশেষ ১৯৯৭ সালে মানিক মিয়া এভিনিউয়ে গণসংবর্ধনা দেওয়া হয়েছিল ক্রিকেটারদের। মালয়েশিয়ায় আইসিসি ট্রফিতে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর ক্রিকেটারদের নিয়ে ঢাকাসহ সারা বাংলাদেশ মেতে উঠেছিল সেদিন। ছাদ খোলা গাড়িতে করে, পুষ্পবৃষ্টিতে ভিজে গোটা ঢাকা ঘুরেছিলেন ক্রিকেটাররা। লাখো জনতা হর্ষধ্বনি করে আকরাম-পাইলট-রফিক, বুলবুলদের অভিনন্দন জানিয়েছিল সেদিন।


*

*

Top